×
  • প্রকাশিত : ২০২১-০৩-২৭
  • ২৪২৪ বার পঠিত
  • নিজস্ব প্রতিবেদক
লক্ষ্য করে দেখেন এটা ঠিক কত বড় এক মানসিক যন্ত্রণা ওদের জন্য গত ৫০ বছর ধরে। মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত হয়েছে; ওদের বাপ-চাচাদের ফাঁসী হয়েছে ট্রাইব্যুনালে মুক্তিযুদ্ধে নানাবিধ আন্তর্জাতিক অপরাধের কারনে। 

৫০ টা বছর ধরে পাকিস্তানকে হারিয়ে ফেলবার তীব্র যন্ত্রণা ওরা লালন করে রয়েছে বুকের গহীনে। আজও। এই স্বাধীন বাংলাদেশে।

কেন মোদীর উপর এত রাগ? 

গুজরাট নিয়ে? 

হতেই পারেনা। 

যদি মানুষ হত্যা-ই মূল কারন হতো তাহলে শ্রীলংকার প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে একটি টু-শব্দ করেনি কেন এই অপগন্ড-মূর্খ আর গন্ডাররা? 

গোটাবায়া পাকশে'র বিরুদ্ধেওতো ছিলো তামিল নাগরিক হত্যার অভিযোগ, কেন তাকে নিয়ে একটি শব্দও উচ্চারিত হোলো না? মিছিল হলো না, মিটিং হলো না?

আসলে সমস্যা মোদিতে নয়। সমস্যা চাঁদিতে। মানে মাথায়। মানে মগজে। মানে মননে।

ভারত কেন দেড় কোটি বাংলাদেশী নাগরিককে ১৯৭১ সালে আশ্রয় দিয়েছিলো? না দিলে আরো খুন করতে পারতো এদের বাপ চাচারা। সেই ক্রোধে ওরা আজও জ্বলে। আরো ক্রোধান্বিত হয়।

তা না হলে মিছিল থেকে কেন স্লোগান উঠবে আজ ২০২১ সালে এসে, 'দিল্লী না ঢাকা?', 

এই স্লোগান তো পাকিস্তানী হানাদারদের দোসর জামাত-পিডিবি-নেজামে ইস্লামী, আল বদর-আল শামস-শাহীন ফৌজ, শান্তি কমিটি,রাজাকার,বিহারী এরা দিতো ১৯৭১ সালে

খোঁজ নিয়ে দেখুন, আজকে যারাই বায়তুল মোকাররম কিংবা হাট হাজারীতে আইন শৃংখলাবাহিনীর উপর এমন আক্রমণ চালালো এদের ব্যাথাটা ঠিক কোথায়? খোঁজ নিলেই জানতে পারবেন।

স্বাধীনতার এই ৫০ বছরের দিনে কোথায় একটু আনন্দিত হবে, কোথায় একটু উদ্বেলিত হবে কিংবা উচ্ছাসিত হবে তা নয়, বরং ১৯৭১ সালের এইদিনে যেভাবে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী তৎকালীন ইস্ট বেঙ্গল পুলিশের উপর অতর্কিতে আক্রমণ চালিয়েছিলো, ঠিক ৫০ বছরের পূর্তিতে এই রাজাকার শাবকেরা আজকে আমাদের স্বাধীন বাংলাদেশের পুলিশের উপর আক্রমণ চালিয়েছে।

আমরা করছি আনন্দ আর উৎসব আর ওরা মেটাচ্ছে পরাজয়ের বেদনা। ৫০ বছরের পরাজয়ের ট্রমা। ৫০ বছরের পরাজিত শক্তি।
-ব্যারিস্টার নিঝুম মজুমদার

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...
ক্যালেন্ডার...

Sun
Mon
Tue
Wed
Thu
Fri
Sat